অনলাইন বিজনেস হল, যখন কোন ব্যবসায়িক ক্রিয়াকলাপ ইন্টারনেটে ঘটে।

অনলাইন বিজনেস হল, যখন কোন ব্যবসায়িক ক্রিয়াকলাপ ইন্টারনেটে ঘটে। অনলাইন বিজনেসের ক্ষেত্রে আপনাকে খুব বেশী মূলধন বিনিয়োগ করতে হবে না। এছাড়া এসব ব্যবসায় আপনি পার্ট-টাইম এবং বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে পরিচালনা করতে পারবেন।

প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে পারলে সফলতা আসবেই। আসতেই হবে।।

অনলাইন বিজনেস শুরুর করার আগে যা জানতে হবে?
প্রাত্যহিক জীবনে ইন্টারনেট, মুঠোফোন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক নিত্য সঙ্গী হয়ে উঠেছে। তাই ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলো ও অনলাইনের মাধ্যমে গ্রাহককে খুঁজে নিচ্ছেন। আবার ক্রমবর্ধমান জ্যাম,যানবাহনের ঝামেলা থকে বাঁচতে আর সময় বাঁচাতে সবাই এখন খোঁজ রাখেন ফেইসবুক পেজ এ লাইক দিয়ে। এইসব কারনেই প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান অনলাইন এর সাথে জড়িত হচ্ছে। এমন কোনো সেক্শন নেই যেখানে অনলাইন এর সম্পৃক্ততা নেই। অনলাইন বিজনেস-এর সামগ্রিক কাজ নির্ভর করে অনলাইনের উপর। পণ্য এবং সেবাকে মানুষের নিকট পৌঁছে দেওয়ার জন্য সবকিছুই অনলাইনের উপর নির্ভরশীল। আর এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে অনেকেই ঘরে বসে অল্প সময়ে অধিক উপার্জন করার সুযোগ পাচ্ছে।

যেকোন বিজনেস শুরুর আগেই স্টাডি করা প্রয়োজন আর অনলাইন বিজনেসে যেহেতু ভার্চুয়ালি হয় তাই আরও বেশি কেয়ারফুল হতে হয়। অনলাইন বিজনেস শুরুর আগে নিজের একটা ভিশন থাকা দরকার যেটাকে বলা হয় মাইন্ড-সেট। তাই আগে ভিশন ঠিক করে নিন। একটি অনলাইন প্রজেক্ট কে লাভজনক করার জন্য এর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যত গুলো ধাপ আছে,সবগুলো সম্পর্কে ভালভাবে জানুন তারপর এবং ডিরেক্ট অ্যাকশনে যান। অনলাইন বিজনেস শুরু করা তেমন কোনো কঠিন কাজ নয় তবে, যদি সফল হতে চান, তবে আমরা যে এই ৪ টি বিষয়ে ফোকাস করব।

সঠিক পরিকল্পনা, মার্কেট পর্যালোচনা, বিনিয়গ,পরিকল্পনা অনুযায়ী নিয়মিত কাজ

উপরোক্ত চারটি বিষয় কে বাস্তবে কোনো অনলাইন প্রজেক্ট এ কাজে লাগাতে হলে আপনাকে জানতে হবে কিছু বেসিক জিনিস।

বিজনেস প্ল্যান করা:- পণ্য বা সেবা নির্বাচন করুন। আপনি কি পণ্য বা সেবা দিতে চাচ্ছেন, কোন শ্রেণীর লোক মূলত আপনার ক্রেতা হবে, তা নির্দিষ্ট করুন।

কী ওয়ার্ড পর্যালোচনা করুন, কি পরিমান সম্ভাব্য ক্রেতা আছে, কত গুলো প্রতিযোগী কোম্পানি আছে, আপনার অবস্থান, বাজেট, মার্কেটিং পলিসি কি হতে পারে তা নির্ধারণ করুন।

বিজনেস প্ল্যান লেখা:- আপনার পণ্য বা সেবাকে সঠিক ভাবে ক্রেতার নিকট বোধগম্য করার জন্য কন্টেন্ট লিখুন, নিয়মিত কন্টেন্ট যেমন: কি কি পণ্য / সেবা দিচ্ছেন, এর সুবিধা কি কি, কাদের জন্য, এইরকম কন্টেন্ট- আপনার কোম্পানির প্রোফাইল পেজ, কন্টাক্ট পেজ, প্রাইভেসী পেজ, টার্মস এন্ড কন্ডিশন পেজ এবং অন্য কোনো কোম্পানির সাথে এফিলিয়েট থাকলে ডিসক্লেইমার পেজ এন্ড ডিসক্লোজার পেজ তৈরী করুন।

এরপর অনপেজ SEO করে আপনার সবগুলো পেজ কে সঠিক ভাবে আপনার পূর্বে নির্বাচিত কী ওয়ার্ড অনুযায়ী অপ্টিমাইজেশন করে নিন

বিজনেস, ডোমেইন নেম রেজিস্টার:- ডোমেইন নাম নিবন্ধন করুন, এমন একটি ডোমেইন নাম নির্বাচন করুন, যেন নাম থেকেই আপনার বিজনেস এর ধরণ বুঝা যায়, এতে করে মানুষ সহজে মনে রাখতে পারবে।

ওয়েবসাইট তৈরি এবং ম্যানেজমেন্ট এরপর এমন একটি ওয়েবসাইট তৈরী করুন যেন আপনার পণ্য বা সেবাকে খুব সুন্দর ভাবে ক্রেতার নিকট উপস্থাপন করা যায়, আর এটিই হলো আপনার অনলাইন বিজনেস প্লাটফর্ম।

আপনার ওয়েবসাইট কে অনলাইন করার জন্য ভালো মানের একটি হোস্টিং নির্বাচন করুন, এরপর আপনার ওয়েবসাইট এর নিয়মিত নিরাপত্তা চেক করুন, আপডেট করুন, ব্যাকআপ রাখুন এবং আরো কিভাবে ভালো বিজনেস করা যায় তা পর্যালোচনা করুন।

সামাজিক মাধ্যমে মার্কেটিং:- অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, নিয়মিত কনটেন্ট মার্কেটিং, ভিডিও মার্কেটিং, ও বিভিন্ন প্রকার লিংক বিল্ডাপ এর মাদ্ধমে ভালো ভাবে অফ-পেজ এস এ ও করুন ফেইসবুক সহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমগুলো ভালভাবে পরিচালনা ও অন্যান্য কৌশলগুলো ও জানতে হবে

বানিজ্যিক অ্যাকাউন্ট খোলা:- বিভিন্ন গ্রাহকের সাথে লেনদেন করতে হলে একটা আলাদা অ্যাকাউন্ট খোলা ও মেইনটেইন করতে জানতে হবে।

যোগাযোগ বৃদ্ধি:- প্রথমেই আপনার অনেক ক্রেতা তৈরি হবে না। শুরুতে পরিচিতদের আপনার বিজনেস সম্পর্কে জানান এবং ধীরে ধীরে বিভিন্ন রকমের মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়লে আপনার আইডিয়া ও ক্রেতা দুটোই বাড়বে।

ব্যবসায়ের আইন কানুন:- আইন মেনে ব্যবসা করতে হবে। সেক্ষেত্রে সাধারণ আইনের পাশাপাশি সাইবারের নানা আইন আর নিয়ম নীতি মেনে চলতে হবে।

প্রফেশনাল কোর্স:- প্রয়োজনে অনলাইন বিজনেস এর উপর একটি প্রফেশনাল কোর্স করে ঘরে বসে আয়ের একটি অনলাইন ব্যবসা শুরু করুন।

একটি কথা মনে রাখবেন– একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে নিয়মিত উপার্জন পেতে গেলে প্রতিটা বিষয়কে গুরুত্ব সহকারে নিতে হবে। আন্তরিকভাবে নিয়মিত কাজ এবং পর্যবেক্ষণ এর মাধ্যমে যে কোনো ব্যাবসায় সফল হয় যায়।তাই ,হয়ে উঠুন আপনিই আপনার বস, আজই শুরু করুন অনলাইন বিজনেস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

যুক্তরাজ্যে ফাইজারের প্রথম টিকা নিয়েছেন ৯০ বছর বয়সী মার্গারেট কেনান। তিনি নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের এনিস্কিলেন শহরের বসবাস করেন।

Wed Dec 9 , 2020
যুক্তরাজ্যে ফাইজারের প্রথম টিকা নিয়েছেন ৯০ বছর বয়সী মার্গারেট কেনান। তিনি নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের এনিস্কিলেন শহরের বসবাস করেন। করোনাভাইরাসের ইতোমধ্যে বিশ্বের ৬ কোটি ৮৫ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। আর এই ভাইরাসের সংক্রমণে ১৫ লাখ ৬২ হাজার মানুষ মারা গেছেন। এর মধ্যে যুক্তরাজ্যে চূড়ান্তভাবে ফাইজারের টিকা মানব দেহে প্রয়োগের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। […]